Author Archive

একটি রাজনৈতিক দলের আত্মহত্যা প্রচেষ্টা ও গণতন্ত্রের সংকট   Leave a comment

(এ লেখাটি গত ৮ জুন বনিকবার্তা’য় ছাপা হয়েছে; সেখান থেকে তুলে দিলাম)

গত ২৮ মে ত্রিশাল থেকে যখন ‘অটো’তে করে গফরগাঁওয়ের আত্মীয় বাড়ি যাচ্ছিলাম, তখন সহযাত্রীদের সঙ্গে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে কথা উঠল; তারা গফরগাঁওয়ের রসুলপুর ইউনিয়নের ভোটার; তাদের নির্বাচন নিয়ে বেশি উত্সাহী মনে হলো না। কারণ হিসেবে তারা জানাল এবারে নির্বাচন হচ্ছে মূলত কাউন্সিলর পদে, চেয়ারম্যান হবে স্থানীয় এমপি যাকে মনোনয়ন দিয়েছে সে। জোর গুজব চেয়ারম্যান পদে ভোট দিতে হবে সবার সামনে, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীকে অথবা ফলাফল বদলে দেয়া হবে উপজেলা সদরে। তাদের মতে, আগের চেয়ারম্যান মইন সরকার আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা ও বিদ্রোহী প্রার্থী, তাকে সমর্থন করে ৯০ শতাংশ মানুষ। কিন্তু সে কোনো প্রচারণা চালাতে পারছেন না, তার সমর্থকদের আওয়ামী লীগ তথা এমপি মনোনীত প্রার্থীর কর্মীরা মারধর করছে; সংঘর্ষ হচ্ছে দুপক্ষের মধ্যে, যা তাদের এলাকায় আগে দেখা যায়নি। ‘এমপি মনোনীত আওয়ামী লীগারদের’ হামলা-নির্যাতনে বাইরে বের হতে পারছে না বাকি আওয়ামী লীগাররা। আরেকটু এগোতেই পড়ল বারবারিয়া ইউনিয়ন, সেখানকার আগের চেয়ারম্যান জাহিদ হোসেন তিন-তিনবার নির্বাচিত, ছাত্রলীগের রাজনীতি করে উঠে আসা, তুমুল জনপ্রিয়, কিন্তু তিনিও এমপির মনোনয়ন পাননি, তাই দলের প্রার্থী হতে পারেননি। সহযাত্রীদের মতে, মানুষ যদি কোনোমতে তাদের ভোট দিতে পারে তবে সে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবে আর এমপি মনোনীত আওয়ামী লীগদলীয় প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়ার শঙ্কা বেশি। এমপি মনোনীত প্রার্থী উপজেলায় ‘খাইয়ালা কাশেম’ নামে পরিচিত তার সর্বভুক অর্থলিপ্সার জন্য। কিন্তু এত জনপ্রিয়তা সত্ত্বেও পুরনো পরীক্ষিত নেতারা কেন দলের মনোনয়ন পেল না— জানতে চাইলে তারা জানাল, উপজেলার কোনো পুরনো জনপ্রিয় নেতাই এবার মনোনয়ন পাননি; পেয়েছে ভুইফোঁড় আর কুখ্যাত সব ব্যক্তি। স্থানীয় এমপি মনোনয়ন দিয়েছে টাকার বিনিময়ে, মোটা অঙ্কের টাকা। আর এসব অর্বাচীন প্রার্থীদের নির্বাচনে পাশ করাতে সে ও তার চেলারা কায়েম করেছে ত্রাসের রাজত্ব। কর্মীরা ভোট চাইতে পারছেন না, মাইকে প্রচারণা চালাতে পারছেন না, সে নিজেও গণসংযোগ করতে পারছেন না। আমি নিজ চোখেই দেখলাম যাত্রাপথে কোথাও কোনো বিদ্রোহী প্রার্থীর পোস্টার চোখে পড়ল না, যেখানে নৌকার পোস্টারে পুরো এলাকা সয়লাব।

যাহোক, আত্মীয় বাড়ি গিয়ে পৌঁছলাম, সেখানেও এল নির্বাচন প্রসঙ্গ, তারা আজীবনের একনিষ্ঠ আওয়ামী লীগ সমর্থক, কিন্তু এবার কোনো মতেই ‘আওয়ামী লীগ মনোনীত’ প্রার্থীকে ভোট দেবে না। তারা অত্যন্ত বিরক্ত যে, সারা উপজেলায় সব ‘গুণ্ডা-বদমাস’দের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে ঘুষ নিয়ে। আর তারা ক্ষমতার দম্ভে ধরাকে সরা জ্ঞান করছে, মানুষকে নির্যাতন করছে। প্রশাসন হয় নীরব দর্শক, না হয় এসবে সক্রিয় সহযোগী। বাড়ির শিশুরাও, যারা আগে বড়দের দেখাদেখি আওয়ামী লীগের গুণগানে মুখর থাকত, তারাও ‘মনোনীত আওয়ামী লীগারদের’ বুঝাতে এমনভাবে ‘আওয়ামী লীগ’, ‘আওয়ামী লীগ’ করছিল যে, আমি বিভ্রান্ত হয়ে যাচ্ছিলাম এটা কি ‘জাত আওয়ামী লীগ সমর্থকদের’ বাড়ি না অন্য কারো।

আওয়ামী লীগ যখন দলীয় মনোনয়নে স্থানীয় সরকার নির্বাচনের ঘোষণা দিল, তখনই আমি আশঙ্কা করেছিলাম যে, এতে স্থানীয় নেতারা তাদের পছন্দের লোকদের মনোনয়ন দেবে দলে তাদের অবদান আর জনপ্রিয়তার তোয়াক্কা না করেই; হবে মনোনয়ন বাণিজ্য; তাতে দলের বেশির ভাগ নেতাকর্মী বঞ্চিত হবে, অসন্তুষ্ট হবে আর দল হবে দুর্বল। কিন্তু আমি বিস্ময়ের সঙ্গেই লক্ষ করলাম আমার আশঙ্কার চেয়েও পরিস্থিতি অনেক বেশি খারাপ- এ মনোনয়ন পদ্ধতি আসলে দলের স্থানীয় পর্যায়ে এক ধরনের জায়গিরদারি প্রথা চালু করেছে মূলত এমপিকে কেন্দ্র করে, যেখানে তাকে নজরানা না দিয়ে, তার ধামাধরা না হয়ে দলে টিকে থাকা অসম্ভব। এমনকি ব্যাপক জনসমর্থন থাকলেও। আর প্রতিযোগিতা, প্রতিদ্বন্দ্বিতা বা বিরোধিতার তো প্রশ্নই ওঠে না। বর্তমান অবস্থায় দলের বেশির ভাগ কর্মী-সমর্থক শুধু অসন্তুষ্টই নন বরং ‘এমপি মনোনীত আওয়ামী লীগার’ দ্বারা নির্যাতিত। ফলে তারা ক্রমে নিজ দলের প্রতিপক্ষ হয়ে উঠছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে এমপি-মন্ত্রীদের পোষা কিছু গুণ্ডা ছাড়া আওয়ামী লীগের কর্মী খুঁজে পাওয়া কঠিন হবে। শুধু তাই নয়, এটা তাদের সমর্থকদেরও দলের প্রতি বিরূপ করে তুলছে। আওয়ামী লীগের প্রথাগত বংশানুক্রমিক সমর্থক গোষ্ঠী দ্রুত ক্ষয়ে যাওয়ার হুমকির সম্মুখীন। গ্রামের মানুষের কাছে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন একটি বড় উত্সব, যা থেকে আওয়ামী লীগ তাদের বঞ্চিত করছে; এটা তারা ভালোভাবে নিচ্ছে না, যেমন নিচ্ছে না তাদের ভোটের অধিকার খর্ব করাকে। আর এটা এমন একসময়ে ঘটছে, যখন ধানের অতি কম দামের জন্য কৃষকরা এরই মধ্যে নাখোশ। এটি যেন আওয়ামী লীগের পরিকল্পিত আত্মহত্যা প্রচেষ্টা।

কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে আমার ভয় পাওয়ার পরিসর আওয়ামী লীগের ভবিষ্যতের চেয়েও অনেক ব্যাপক। বিএনপি তার দুই রাজনৈতিক ভুল- অতি জামাতপ্রিয়তা বা নির্ভরতা ও অতিদ্রুত নির্বাচনের বিকল্প পন্থায় ক্ষমতায় যাওয়ার চেষ্টায় এবং সরকারি দলের দমন কৌশলের কারণে জীর্ণ, দিশেহারা; তাদের গুছিয়ে উঠতে অনেক সময় লাগবে। আর এখন আওয়ামী লীগের গণভিত্তি, স্থানীয় সাংগঠনিক কাঠামো ও জনসমর্থন হুমকির মুখে; তারা প্রথাগতভাবে যে সমর্থকগোষ্ঠীর একচ্ছত্র সমর্থন পেয়ে আসছিল, তা ক্ষয়িষ্ণু। গত দুদশকে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন ও গণতান্ত্রিক চর্চার ক্ষেত্রে যে অগ্রগতি হয়েছিল, তা মাত্র দুবছরে তারা প্রায় ধ্বংস করে ফেলেছে। নির্বাচনে সহিংসতা, সন্ত্রাস ফিরে এসেছে আগের চেয়েও ভয়াবহ রূপে; যা আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির ব্যাপক অবনতিরও লক্ষণ। এাট নিশ্চিতভাবেই সমাজের অন্যান্য ক্ষেত্রেও সহিংসতা উসকে দেবে আর আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও আইনের শাসনের অবস্থা আরো খারাপ হবে। দেশে ক্রমবর্ধমান মৌলবাদের (পড়ুন আমূলবাদের/ radicalization) বিস্তার আর জঙ্গি তত্পরতার প্রেক্ষাপটে জনগণ যদি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা আর প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর ওপর আস্থা হারায় (বর্তমান পরিস্থিতিতে যা অবশ্যম্ভাবী বলেই মনে হচ্ছে, কারণ দলগুলোর ওপর আস্থার জায়গা আর খুব একটা বাকি নেই) তবে তা যে ওই দলগুলোর ধ্বংসই ডেকে আনবে, তা নয় বরং দেশে অরাজকতা সৃষ্টি হবে, মৌলবাদী, অগণতান্ত্রিক শক্তিগুলোকে বলবান হওয়ার, প্রভাব বিস্তারের সুযোগ করে দেবে, যা কারো জন্যই মঙ্গলজনক হবে না। আর তা যদি ঘটে তবে এর জন্য দায়ী হবে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব, তাদের অপরিণামদর্শী কার্যকলাপ, ক্ষমতার লোভ ও দম্ভ।

সূত্রঃ

http://bonikbarta.com/news/2016-06-08/76850/%E0%A6%8F%E0%A6%95%E0%A6%9F%E0%A6%BF-%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%9C%E0%A6%A8%E0%A7%88%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%95-%E0%A6%A6%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%86%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%AE%E0%A6%B9%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%9A%E0%A7%87%E0%A6%B7%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BE-%E0%A6%93-%E0%A6%97%E0%A6%A3%E0%A6%A4%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%82%E0%A6%95%E0%A6%9F/

Posted June 18, 2016 by Abu Ala in Uncategorized

Research Report Published   Leave a comment

My co-authored research report “Uncounted Works Of Indigenous Women At Chittagong Hill Tracks” has been published.

Here is the link of the electronic version-

 

 

গ্রামের জঙ্গলের বন্যপ্রাণী সমাচার   Leave a comment

ছোটবেলায় যখন গ্রামে যেতাম শেয়াল, খেক-শেয়ালের ডাক খুব সাধারণ ব্যাপার ছিল। বনবিড়াল ও ছিল। মাঝে মাঝে লোকজন মিলে তাদের মারতেও বের হতো যখন হাঁসমুরগির উপর তাদের হানা বেড়ে যেতো। মাঝে অনেক বছর এদের তেমন কোন সাড়াশব্দ পেতামনা; ভেবেছিলাম এরা বোধহয় হারিয়েই গেছে। গত কয়েক বছর ধরে শেয়ালের উৎপাতের কথা শুনে আসছি; বিশেষ করে পাগলা শেয়ালের মানুষ কামড়ানোর কথা। তারপর নিজেও দিনেদুপুরে রাস্তাঘাটে দেখলাম; আর রাতে তো সারা গ্রাম তাদেরই দখলে থাকে। কুকুরগুলো নাকি তাদের ভয়ে লুকিয়ে থাকে। গত ধানের মৌসুমে ধানক্ষেতের ফাঁকে একটি বনবিড়ালও দেখলাম বহুবছর বাদে। মনটা বেশ খুশী হয়ে গিয়েছিল যে এসব বন্যপ্রাণীরা এখনো টিকে আছে; তাদের সংখ্যা বাড়ছে তাই দেখা পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু সাম্প্রতিক কিছু ঘটনায় আমার ক্ষণস্থায়ী আনন্দ আতঙ্কে পরিণত হচ্ছে- প্রথমতঃ লোকজন শেয়ালের উৎপাতে খুব বিরক্ত, হাঁস-মুরগী, ছাগল নিয়ে যাচ্ছে; দ্বিতীয়তঃ মানুষকে কামড়াচ্ছে, দুদিনে বেশ কয়েকজন মানুষকে কামড়েছে বলে শোনা গেছে। তৃতীয়তঃ এবার “ওয়াপ” (বনবিড়াল) ও মানুষকে কামড়েছে বলে শুনলাম; যার ফলে একটি বনবিড়ালকে মেরেও ফেলা হয়েছে। গিয়ে দেখি একটা ছোট বনবিড়ালকে মেরে গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। এ’টি নাকি ঘরে ঢুকে একটি বাচ্চাকে কামড়েছে। আমার মনে হল বিড়ালটি আত্মরক্ষার জন্য এ কাজ করেছে। পাগলা বেড়ালে কামড়ানোর কথা তো আগে শুনিনি; তা ছাড়া বনবিড়াল লাজুক, গোপনীয়তা প্রিয় প্রাণী, মানুষের সামনে তো সহজে পড়তে চায়না।

এ ঘটনা আমার মনে কিছু প্রশ্নের জন্ম দিল, যা আশঙ্কার- এক, আমি যে ভেবেছিলাম এসব বন্য প্রাণীগুলো টিকে আছে তা কি সঠিক? নাকি অবশিষ্ট যে কয়টা আছে সেগুলোও এখন লুকিয়ে থাকার জায়গা পাচ্ছেনা, পাচ্ছেনা খাবার আর তাই ঝুঁকি নিয়ে মানুষের কাছাকাছি, তাদের সামনে আসতে হচ্ছে। গ্রামে যে হারে জঙ্গল আর গাছ-পালা কমছে তাতে সেটা হবার সম্ভাবনাই বেশী। অন্যদিকে মানুষের উপর তাদের আক্রমণ যে কারণেই হোক তা যে তাদের উপর প্রতিশোধমূলক হামলা আরও বাড়িয়ে দিবে তা বলাই বাহুল্য। মোদ্দাকথা সাম্প্রতিককালে কেন এসব প্রাণীর মানুষের ওপর আক্রমণ ও তাদের প্রকাশ্যে দেখা যাওয়া বেড়ে গেছে তা বৈজ্ঞানিকভাবে অনুসন্ধান করে সংরক্ষন ব্যবস্থা না নিলে এরা যে দ্রুতই হারিয়ে যাবে তা নিশ্চিত। সম্ভবত এটাই আমাদের শেষ সুযোগ এদের টিকিয়ে রাখার।

Experience of “Waje Mahfil” (Islamic Seminar/speech)   Leave a comment

Posts From facebook

February 3 at 10:59pm

I have been compelled to listen high volume “Waje” (Islamic speeches by clerics) in my village. Though there are some good advice in the speech that I liked. It is going on without any concern about the sound safety/pollution and the studies of the students who are appearing SSC exams. But I am more bothered by the reference of the other religions to establish supremacy of Muslims and the offensive tone by a speaker to them and to the cultural practices such as listing music.
I think it is completely unnecessary to refer to others for proving ones superiority if they are really superior. Islam and Muslims have a lot of things to be proud of and they have the same chance to do good things to be more proud like anyone else in the world; so when these mean-minded clerics would realize the importance of respecting others and good deeds to make oneself proud than offending others? And would be responsible to other people —

 

February 4 at 10:53pm

After the speeches prolonged beyond the midnight, one of the hot topics today was a comment by a cleric: A Muslim man should not apply razor to his beard, means one should not trim his beards; some people were asking if it is seriously meant; then some other replied- they should have asked that to that speaker, if he had ever trimmed his beards, which is most likely. Besides that my observation is the younger speakers delivered the most important advice in their speech but the crowd favourite were those older ones who could sensationalize the speech, added some spicy statements and could prove that ‘Muslims’ are superior to ‘others’ regardless their practices and qualities (well there is still space for debate on what they meant as ‘Muslims’). So, my observation is that the quality of speakers and audiences reproduces each other and limits hope for people like me that the society would be benefited from it.

 

February 4 at 11:15pm

In the evening I came across a group of my relatives and fellow villagers who were devising publicity strategy for another such “Islamic Waje Mahfil” in two weeks time at arms length form the place of the last nights one, beside another mosque (there are two mosques in the community within the distanse of few hundred meters resulting from factional rivalry) and my impression was that this “Waje Mahfil” was not also a separate incident. From last night’s experience I requested the coordinating person of this event, a senior cousin of mine, to consider two things: the SSC exam of the students and the issue of sound level; he replied that the high volume religious speech is not a problem, as it is virtuous, no one should complain about it. Though one or two in the gathering nodded in support, my request was returned from deaf ears. As I am writing, loudspeaker sound of another such event from few kilometers apart is pouring in to my ears; and reminding me that at my childhood and youth such events were rare and within last decade or even less than that it is becoming more frequent along with sending the children in the religious schools.

(after the above post some of my friends expressed concerns over my safety due to recent extremism on religious issues and I had to write the following reply–)

February 6 at 11:42am

Thanks everyone for your concerns! I partially agree with you; except the risk factor, which was minimal as that was my village and I and my family have a reputation there; however, few valuable things I have learned there- the sound and exam time issues are probably due to ignorance and unawareness- when I raised it, immediately some people agreed with it but unfortunately not all; later some of the organizers told me that they will try to keep sound low. And I am sure if they could thought about it consciously, they would have considered about exam too; they already printed the posters, made some preparation and invested some money, so it was not easy for them to change the date. I hope next time they will consider those. And it is our duty to share knowledge and awareness with our community —-

 

Posted February 6, 2016 by Abu Ala in Governance, Religion & faith, Society

সন্ত্রাসী আন্দোলন ও আমরা   Leave a comment

কাল সন্ধ্যায় একটি পরিবেশবাদী সংগঠনে সভা শেষে ফিরছিলাম – একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপিপন্থী শিক্ষকনেতা আমাকে রাস্তায় নামিয়ে দেবেন বলে তাদের গাড়িতে উঠালেন, সোবহানবাগ মসজিদের কাছে পৌছলে রাস্তায় গাড়ির ভিড় প্রায় থেমে ছিল, এমন সময় শব্দ হলো তাকিয়ে দেখলাম সামনের গাড়িতে ধোয়া, একজন হেলমেট পরা লোক সরে যাবার চেষ্টা করছে – মনে হলো পুলিশ বা বিজিবি সদস্য; সাথে সাথে আরেকটি শব্দ মনে হলো এবার আমাদের গাড়িতেই – সৌভাগ্যবশতঃ তা হয়নি, তবে সামনের গাড়িতে আগুন ধরে গেল; আমরা সবাই অত্যন্ত আতঙ্কিত ছিলাম; চালক দ্রুত সেখান থেকে সরে যেতে পারল; আমরা কিছুটা স্বস্তি পেলাম যদিও পুরো আশ্বস্ত নয় যে নিরাপদ হতে পেরেছি। আমার বিএনপিপন্থী সহযাত্রীরা বিষয়টি নিয়ে কথা বলছিলেন, তারা নিরাপত্তাহীনতায় শঙ্কা প্রকাশ করছিলেন, এমনও বলছিলেন যে যদি আমরা আহত হতাম তাহলে কি হতো ? – পত্রিকায় সংবাদ হতো নিশ্চিত; দল থেকে সরকারকে দোষ দেয়া হতো, সরকারী দল দোষ দিত বিরোধী দলকে; কেউ বলতো উচি‌ত শিক্ষা হয়েছে বিএনপি সমর্থকদের, কেউ হয়তো এমনো বলতো যে তারাই বোমাবাজি করতে গিয়েছিল—। আমি ভাবছিলাম আমার ক্ষেত্রে কি হতো – আমাকেও হয়তো কোন দলের কর্মী-সমর্থক দাবী করা হতো- যদিও আমি কোন কালেই তা নই – তারপর কেউ কোন দায়িত্ব নিত না – আমার যন্ত্রণা আমাকেই বইতে হতো -। আমার সহযাত্রীদের অবস্থা আমার কাছে অস্পষ্ট মনে হলো – তারা তাদের নিরাপত্তাহীনতা নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিল ঠিকই তবে যেহেতু নিজ দলীয় লোকেরাই তা করেছে তাই কোন দলকে তারা দোষারোপ করতে না পেরে সমালোচনা করছিল সাধারণভাবে রাজনৈতিক সংস্কৃতিকে, ক্ষমতার লোভকে। আমি নিশ্চিত তারাও আমার মতই একই রকম অপছন্দ করেছে ব্যাপারটি; একই রকম নিরাপত্তাহীনতা বোধ করেছে; কিন্তু তারা কখনো দলীয় পর্যায়ে এমন আন্দোলনের পন্থার বিরোধিতা করবেনা বা করতে পারবেনা। যেমন পারিনা আমরা — আর এভাবেই আমরা জিম্মি হয়ে থাকবো রাজনৈতিক নেতা নামধারী গুটিকয় অসৎ-অপরাধীর — যতক্ষণ না আমরা তাদের দেখাতে পারি আসল ক্ষমতা কার হাতে- তাদের না আমাদের – জনগণের; সেজন্যে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাস্তায় আসতে হবে – কোন দলের পক্ষে বা বিপক্ষে নয় বরং বিষয় ভিত্তিক দাবী নিয়ে — আমারা কি নিজেদের জন্য এটুকু করতে পারিনা ??

বউ হলেই পেটানো যায় ???   Leave a comment

আজ সন্ধ্যায় হাটতে হাটতে আগারগাঁও রেডিও সেন্টারের কোনায় পৌছতেই দেখতে পেলাম একটি খাঁটো গাট্টা-গোট্টা লোক একজন মেয়ের গলা ধরে ধস্তাধস্তি করছে আর সে ছাড়া পাওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে; ২০ গজ দূরেই কিছু রিক্সা আর মানুষ দাড়ানো কিন্তু তারা তা খেয়াল করেছে কিনা বুঝলাম না। আমি একটু খেয়াল করে এগিয়ে গেলাম নারীটিকে ছাড়ানোর জন্য। আমি যখন পুরুষটিকে বলছিলাম নারীটিকে ছেড়ে দিতে তখন আরো কয়েকজন লোক এগিয়ে এলো ও ওকে বাধ্য করলো নারীটিকে ছেড়ে দিতে। এ সময় অত্যন্ত আক্রমনাত্মক পুরুষটি বলতে লাগলো যে নারীটি তার স্ত্রী আর নারীটি তা অস্বীকার করার সব চেষ্টা করতে লাগলো – এটা শুনে যারা এগিয়ে এসেছিলো তারা চলে যেতে লাগলো আর এ সুযোগে পুরুষটি সজোরে নারীটিকে আঘাত করলো। আমি সাথে সাথে বললাম যে অনেক অপরাধীরা নারীদের আক্রমন করার সময় এমন বলে; এটা শুনে যারা চলে যাচ্ছিল তারা আবার ফিরে আসলো। এসময় আক্রমনকারী কারো উদ্দেশ্যে হাক দিলো এগিয়ে আসার জন্য – কিছু তরুন এসে আমাদের আক্রমনাত্মক ভাবে ঘিরে ধরলো এবং আমরা কারা, কেন স্বামী-স্ত্রীর বিষয়ের মধ্যে নাক গলাচ্ছি এসব জিজ্ঞেস করতে লাগলো- আমি সাহস ধরে রেখে বললাম যে আসি একজন পথচারী, নারীটিকে আক্রান্ত দেখে এগিয়ে এসেছি; আরো বললাম যে স্ত্রী হলেই তাকে পেটানো যায় না, এটা অপরাধ; শুনে তারা আশ্বস্ত হলো ও আক্রমনকারীকে বললো বাড়ি যেতে। নারীটি বলতে লাগলো যে সে তার স্ত্রী নয়, আলাদা থাকে, তা্র মেয়েকে ঐ লোকটি তুলো এনে আটকে রেখেছে, সে মেয়েকে দেখতে এসেছিল আর তাকেও আটকে রাখতে চাচ্ছে। এসময় আক্রমণকারী অত্যন্ত ক্ষূদ্ধ হয়ে আমার দিকে তেড়ে আসলো । তাকে অন্যরা নিবৃত্ত করলো, আর আমাকে বললো চলে আসতে; আমি চলে আসার সময় এগিয়ে আসা আশেপাশের কিছু নারীকে বললাম আক্রান্ত নারীটিকে সহায়তা করতে। পুরুষটি চিৎকার করছিল যে সে নারীটিকে মেরেই ফেলবে তাই আসতে আসতে অনেক চেষ্টা করলাম পুলিশের সাহায্যের জন্য জরুরী নম্বর ৯৯৯ তে ফোন করতে কিন্তু কোন মতেই তাতে সংযোগ পেলাম না। আমি জানিনা নারীটির শেষ পর্যন্ত কি হলো, হয়তো এবারের মত সে মার খাওয়া থেকে বেচে গেছে, নয়তো বাড়িতে আরো বেশী নির্যাতনের শিকার হচ্ছে —–

কিন্তু আজকের এ অভিজ্ঞতা থেকে কিছু জিনিস আবারো শিখলাম, তা হলো –

  • এখনো আমাদের অধিকাংশ মানুষের বিশ্বাস বউ পেটানো জায়েজ; আর এটা ঘরের বিষয়, অন্যদের নাক গলানো উচিৎ নয়

  • রাস্তায় কেউ আক্রান্ত হলে কেউ প্রথমে এগিয়ে যেতে চায়না, তবে কেউ একজন এগিয়ে গেলে অন্যরা তাতে যোগ দেয়

  • আমাদের আইন-শৃংখলা রক্ষা বাহিনীর সাহায্য চাওয়ার সুযোগ এখনো মধ্যযুগে পড়ে আছে; যার আধুনিকায়ন খুবই জরুরী

এমন পরিস্থিতিতে করনীয় সম্পর্কে আমার পরামর্শ

১. কাউকে (বিশেষতঃ নারী) আক্রান্ত হতে দেখলে এগিয়ে যান; চেষ্টা করুন আশে-পাশে যারা আছে তাদের সাথে নিয়ে এগুতে, সংখ্যার শক্তি বড় শক্তি

২. আপনি আগালে দেখবেন অন্যরাও আপনার সাথে এগিয়ে যাচ্ছে

৩. নিজেরা এগিয়ে যাবার আগেই চেষ্টা করুন জরুরী সাহায্যের জন্য ৯৯৯ বা স্থানীয় পুলিশের নাম্বারে ফোন করতে (যদি পাওয়া যায় তবে তাদের আসতে সময় লাগবে তাই যত আগে তাদের খবর দেয়া যায় তত ভাল)

৪. নিজে যখন সাহায্য করতে যাবেন তখন যতদূর সম্ভব শান্ত থাকবেন; উত্তেজনা বা আক্রমনাত্মক আচরণ করবেনা

৫. কোন রকম দূর্বলতা বা ‘নার্ভাসনেস’ যেন আপনার আচরণে প্রকাশ না পায়

৬. বলূন যে যদি কোন অভিযোগ থাকে তা পুলিশকে জানাতে, নিজে কাউকে আক্রমণ না করতে; কাউকে আক্রমণ করা যে অপরাধ তা স্মরণ করিয়ে দিন

৭. নারীর উপর আক্রমণ, এমনকি স্ত্রী বা পরিবারের অন্য যে কোন সদস্য হলেও যে ঘৃণ্য অপরাধ তা মনে করিয়ে দিন

৮.এ ধরণের আক্রমণকারীরা সাধারণতঃ মানসিক ও নৈতিকভাবে দূর্বল হয় যা তারা ঢাকার চেষ্টা করে আক্রমনাত্মক আচরণ দ্বারা, আপনি শান্ত ও যৌক্তিক আচরণ করলে তারা মানসিকভাবে দূর্বল হয়ে পড়বে

৯. যদি তার পক্ষ নিতে কেউ আসে তাকেও বুঝিয়ে বলূন কেন কাজটি খারাপ এবং তাকেই অনুরোধ করুন তা থামাতে

১০.সব সময় সতর্ক থাকবেন, যাতে আপনি নিজে না আক্রান্ত হন; প্রায় সবক্ষেত্রেই আপনি সফল হবেন

১১. যদি কখনো আক্রান্ত হন তবে যতদ্রুত সম্ভব দৌড়ে নিরাপদ স্থানে চলে যান এবং অন্যদের সাহায্য নিন, দাড়িয়ে থাকবেন না

সবাইকে এসব বিষয়ে সচেতন করুন, যখনি সম্ভব—-

ইনকিলাব ও জামাতীদের আওয়ামীকরণ   Leave a comment

ইনকিলাব পত্রিকা অতি সম্প্রতি একটি সংবাদ প্রকাশ করেছে কিছু সরকারী দলিলের ছবি সহ (http://einqilab.com/2014/01/16/index.php) – যার বক্তব্য ছিল যে বর্তমান সরকার ভারতের সাহায্য নিচ্ছে সাতক্ষীরা অঞ্চলে জামাতীদের দমনে। সংবাদটি এমন, যেন এটা বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ভারতীয় সামরিক হস্তক্ষেপের মত একটি বিষয় আর এর ভিত্তি ফেসবুকে পাওয়া কিছু সরকারী কাগজপত্রের ছবি যা যারা ফেসবুকে দেখেছেন তাদের অনেকে নিজেরাই জালিয়াতি বলে ধরতে পেরেছেন অথচ সংবাদপত্রের অভিজ্ঞ সাংবাদিকরা তা পারলেন না, যাদের যে কোন সংবাদ প্রকাশের আগে তা বিভিন্নভাবে যাচাই-বাছাই করে দেখার কথা। সংবাদটি অত্যন্ত গুরুতর কারণ যেভাবে এটা করা হয়েছে তা শুধু সাংবাদিকতার নৈতিকতার ভয়াবহ লংঘনই নয়, তা দেশে অস্থিতিশীলতা তৈরীর অপচেষ্টা ও জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি; পাশাপাশি এটা কৌতুককরও এজন্য যে এ ইনকিলাব যা বহু বছর ধরে জামাত-শিবিরের মুখপাত্র ছিল তা এর প্রতিষ্ঠাতা রাজাকার মান্নানের মৃত্যুর পর কয়েক বছর আগে মোটামুটি ঘোষণা দিয়েই আওয়ামীলীগ বা এর সরকারের ‘সমর্থন’ করতে শুরু করে। অনেকে তখন বলেছিল যে মান্নান-পুত্র বাবার মৃত্যুর পর জামাতের সাথে স্বার্থের সংঘাতে আওয়ামীলীগের দিকে ঝুঁকেছে। আর সেই ইনকিলাবই এখন আচমকা আওয়ামীলীগের দিকে এক মারণ-শেল ছুড়ল। এটা নিশ্চিতভাবেই জামাত-বিএনপি জোটের পক্ষে এবং চরিত্রগতভাবে জামাতী পদক্ষেপ। এটা এ ইঙ্গিতই দেয় যে সাময়িকভাবে আওয়ামীলীগের পক্ষে দেখালেও চুড়ান্তভাবে ইনকিলাব জামাতীই রয়ে গেছে — । এ ঘটনাটি আরো বেশী গুরুত্বপূর্ণ এজন্য যে এখন আলোচনা শোনা যাচ্ছে জামাত-শিবির নিষিদ্ধ করা হলে যারা আওয়ামীলীগে যোগ দিবে তারা রাজনৈতিকভাবে পূর্ণবাসিত হবে। সম্পতি আওয়ামীলীগের একজন কেন্দ্রীয় নেতা পাবনায় এক জামাতীকে ‘আওয়ামীতে’ রূপান্তর করে তার কৃতিত্ব দেখানোর পর তার দলের আরো কিছু কীর্তিমান নাকি একই পথ অনুসরণ করেছেন, আর তাতেই এ আশঙ্কা আরো জোরালো হয়েছে। এ কাজের জন্য ঐ নেতা পুরষ্কৃত হয়েছে বলেই আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে। তাই আওয়ামীলীগ এখন ভেবে দেখতে পারে ঐ জামাতীরা সময় বুঝে ইনকিলাবের মতই ডিগবাজী দিয়ে যখন তাদের বাঁদর নাচ নাচাবে তারা তা সামলাতে পারবে কিনা? আর তারা যদি মনে করে, আওয়ামীলীগ বা এর জাতীয়-স্থানীয় পাতি নেতাদের দলে ভেড়াই সব পাপ মাফ হবার একমাত্র শর্ত, তবে তাদের এটা মনে রাখতে হবে যে এদেশের মানুষ কারো কাছে মাথা বাধা রাখেনি, তারা অত্যন্ত বুদ্ধিসম্পন্ন ও রাজনৈতিকভাবে সচেতন, তাদের বোকাও বানানো যাবেনা, নিস্ক্রিয়ও রাখা যাবেনা, তারা সব অপরাধের হিসাব নিবে পাই পাই করে- তা কালই হোক আর চল্লিশ বছর পর। জামাতীদের আওয়ামীকরণের প্রবক্তাদের এটাও ভেবে দেখা উচিত ছিল যে জামাতীদের সাথে আশনাইয়ের ফলে বিএনপি’র কি হয়েছে- বিএনপি মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষে তাদের অবস্থান পুরোপুরি হারিয়েছে, সেই সাথে হারিয়েছে জনগণের একটি বড় অংশের সমর্থন, হারিয়েছে দেশের বৃহত্তম দুটো রাজনৈতিক দলের একটি হিসেবে এককভাবে রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষমতা, এমনকি সাংগঠনিক শক্তি ও জন-সম্পৃক্ততাও অনেকাংশে। জামাতী ঘুণপোকা বিএনপিকে ভেতর থেকে ফোঁপরা করে ফেলেছে। জামাতীদের নিজেদের দলে স্থান দিলে আওয়ামীলীগের অবস্থা যে একই রকমের হবে তা বুঝার জন্য বিশেষজ্ঞ হবার দরকার নেই। আর আওয়ামীলীগের মধ্যে যে ইতোমধ্যেই জামাতীরা ছদ্মবেশে লুকিয়ে নেই তা ভাবার কারণ নেই- আমার পরিচিত জামাতের এক রোকনের পুত্র ছাত্র জীবনে শিবির কর্মী ছিল কিন্তু সাংবাদিকতায় যোগ দিয়েই সে হয়ে গেল আওয়ামীলীগের সাথে ঘনিষ্ঠ এক সাংবাদিক নেতার উপদলের সক্রিয় কর্মী। আমার এক সহপাঠী বর্তমানে জামাত অধ্যুষিত অঞ্চলের এক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, সে শিক্ষকও হয়েছে নাকি জামাতী যোগাযোগের ফলেই কিন্তু ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে নাম লিখিয়ে ছিল, অথচ অনেকেই তখনই জানতো যে সে আসলে শিবির কর্মী, তার পরিবারের জামাত সম্পৃক্ততা ও রাজাকারীর ইতিহাস। এটা জামাতের দলীয় কৌশলেরই অংশ, বিভিন্ন দল ও প্রতিষ্ঠানে নিজেদের ছদ্মবেশী কর্মী ঢুকিয়ে তাদের দিয়ে ক্ষমতা কূক্ষিগত করা; নিদেনপক্ষে দলের কর্মী-সমর্থকদের অবৈধ সুযোগ-সুবিধা দেয়া। তারা এভাবেই দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে তাদের দখলদারিত্ব ও সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে, ব্যাংক-বীমা, হাসপাতাল-ব্যবসা ফেঁদেছে। একই প্রক্রিয়ায় তারা বিএনপিকে তাদের উপর নির্ভরশীল করেছে। এখন মনে হচ্ছে আওয়ামীলীগের পালা। আওয়ামীলীগকে পাশাপাশি পুরো দেশকে এমন ঝুঁকির মুখে ফেলার পর, স্বাধীনতা বিরোধী, মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধকারী, তাদের আদর্শে বিশ্বাসী ও সমর্থকদের পূর্ণবাসন করার সুব্যবস্থা করার পরও সেসব আওয়ামীলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় বা দলের মধ্যে কোন জোরালো সমালোচনাও না হওয়ায় এ আশঙ্কাই তীব্র হচ্ছে যে আওয়ামীলীগ আদর্শিকভাবে দেউলিয়া হয়ে যাচ্ছে, এমনকি নিজেদের ভাল হবে কিসে সে বোধও তাদের ভোঁতা হয়ে গেছে অথবা আওয়ামীলীগে ঘাপটি মেরে থাকা জামাতীরা এখন বোধহয় যথেষ্টই শক্তিশালী।